মেকআপ প্রয়োগের স্টেপ বাই স্টেপ কৌশল

Step by Step Makeup Tutorial

যখন মেকআপের কথা আসে, দক্ষ প্রয়োগ  নিয়ে আসতে পারে অনেক সব পার্থক্য। আপনার পছন্দের পণ্যগুলি সঠিক পদ্ধতিতে প্রয়োগ করলে দুটি কাজ করা যায়: আপনি যে সৌন্দর্য দেখতে চান তা অর্জনে আপনাকে সাহায্য করে এবং আপনার মেকআপ থেকে সর্বাধিক সুবিধা পেতে সহায়তা করে।সেরা মেকআপ আধুনিক মহিলাকে করে তুলে পারে আরো আত্মবিশ্বাসী। 

জেনেনিন অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ মেকআপ প্রয়োগের টিপস, লিকুইড ফাউন্ডেশন প্রয়োগ করা থেকে শুরু করে জেল আইলাইনার ব্যবহার করা। এই টিপস এবং ট্রিকস আপনাকে একটি আত্মবিশ্বাসী চেহারা তৈরি করতে সাহায্য করবে যা নিয়ে আপনি গর্ব করতে পারেন।

স্টেপ ০১ – ময়শ্চারাইজার:

আপনি আপনার মেকআপ প্রয়োগ শুরু করার আগে, একটি ভালো মানের ময়েশ্চারাইজার দিয়ে আপনার ত্বক প্রস্তুত করার জন্য সময় নিন। সঠিক ধরণের ময়েশ্চারাইজার নির্বাচন ভালো মেকআপ এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আসুন এক নজরে দেখে নিই যে আপনি বিভিন্ন ধরনের ব্যবহার করতে পারেন ফেস মিস্ট, সিরাম, লোশন, ক্রিম ইত্যাদি দিয়ে আপনি আপনার ফেস ময়শ্চারাইজ করে নিতে পারেন।

স্টেপ ০২ – প্রাইমার:

এখন যেহেতু আপনার ত্বক ভালভাবে ময়শ্চারাইজড, প্রাইমার দিয়ে আপনার মুখ প্রস্তুত করুন। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। আপনার মেকআপের নীচে প্রাইমার ব্যবহার করলে এটি আপনার মেকআপ দীর্ঘস্থায়ী করবে।আপনার আঙ্গুলের ডগায়, অথবা আপনার পছন্দের মেকআপ ব্রাশ বা স্পঞ্জের উপর অল্প পরিমাণে নিয়ে শুরু করুন। ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ মুখে প্রাইমার ভালোভাবে এপলাই করে ফেলুন। 

স্টেপ ০৩ – লিকুইড মেকআপ ফাউন্ডেশন:

যখন ফাউন্ডেশন এর কথা আসে, তখন সবচে বোরো প্রশ্ন আসে আপনি কিভাবে ফাউন্ডেশন এর শেড সিলেক্ট করবেন? আপনার চোয়ালের রং এর সাথে  ফাউন্ডেশনের রঙ পরীক্ষা করুন। যদি কোন ধরণের মিশ্রণ ছাড়াই ফাউন্ডেশন অদৃশ্য হয়ে যায়, আপনি সঠিক শেড টি খুঁজে পেয়েছেন। সঠিক ফাউন্ডেশন এর শেড বাছাই করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ফাউন্ডেশন কি দিয়ে ব্যবহার করবেন তা প্রথম এ ঠিক করুন। কিছু মহিলা তাদের আঙ্গুল ব্যবহার করতে পছন্দ করেন, অন্যরা ব্রাশ এবং স্পঞ্জের মতো সৌন্দর্যের সরঞ্জামগুলি বেছে নেন। আপনি যদি হালকা কভারেজ লুক খুঁজছেন, তাহলে আপনি আপনার আঙ্গুল ব্যবহার করতে পারেন। আরো পূর্ণ-কভারেজ চেহারা জন্য, একটি applicator ব্রাশ বা ব্লেন্ডার নির্বাচন করুন।আপনার মুখের কেন্দ্র থেকে শুরু করুন এবং ফাউন্ডেশনটি বাইরের দিকে ব্লেন্ড করুন।কিছু ধরণের মেকআপ ব্রাশ ত্বকে ফাউন্ডেশন এপলাই করার জন্য দুর্দান্ত।

স্টেপ ০৪ – কনসিলার:

কনসিলারটি আপনার মুখের একটি বৃহৎ অংশে হালকা কভারেজ জন্য সবচেয়ে ভাল। লিকুইড কনসিলার তাদের জন্যও ভাল কাজ করে যারা হালকা ফিনিশ তৈরি করতে চায়, বিশেষ করে চোখ এবং মুখের চারপাশের বলিরেখাগুলির ক্ষেত্রে। স্টিক কনসিলারগুলি মুখের ছোট, আর ] নির্দিষ্ট এলাকায় ভারী কভারেজের জন্য উপযুক্ত।

কোথায় কনসিলার লাগাবেন: চোখের নিচে ডার্ক সার্কলে এর উপস্থিতি কমাতে এবং একটি উজ্জ্বল চেহারা তৈরি করতে, একটি স্যাঁতসেঁতে স্পঞ্জ বা মেকআপ ব্রাশ দিয়ে চোখের নিচে হালকা কনসিলার লাগান। আপনি যদি অবাঞ্চিত দাগের উপস্থিতি কমাতে কনসিলার ব্যবহার করেন তবে সমস্যাযুক্ত এলাকায় সরাসরি এপলাই করুন।

স্টেপ ০৫ – লুজ পাউডার:

পাউডার ব্রাশ ব্যবহার করে, আপনার পুরো মুখে হালকা পাউডার এপলাই করে ফেলুন।যদি আপনার ত্বকের এমন কিছু জায়গা থাকে যেখানে বেশি কভারেজ এর প্রয়োজন তাহলে সেসব জায়গায় একটু বেশি করে পাউডার এপলাই করুন।এই আপনার ফাউন্ডেশন কে আরো মসৃন করতে এবং ম্যাট ফিনিশ দিয়ে অনেক বেশি সাহায্য করবে। 

স্টেপ ০৬ – ব্রোঞ্জার:

ব্রোঞ্জার আপনার মুখে একটি ট্যান লুক দিতে সাহায্য করবে। এই এপলাই করার জন্য আপনি ব্রোঞ্জের ব্রাশ ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে কমন ভুলগুলির মধ্যে একটি হল ভুল ব্রোঞ্জের শেড বেছে নেওয়া। আপনি যদি ব্রোঞ্জারের সাথে কাজ করতে অভ্যস্ত না হন তবে আপনার ত্বকের চেয়ে দুটি গাড়ো রঙের ব্রোঞ্জের  ব্যবহার করুন।

স্টেপ ০৭ -: ব্লাশ:

কোথায় ব্লাশ লাগাবেন সেটা নির্ভর করবে আপনি কোন কালার এর ব্লাশ এপলাই করছেন। যদি পিঙ্ক ব্লাশ এপলাই করেন তাহলে সেটা আপনার গালে ব্যবহার করতে হবে।

স্টেপ ০৮ -: হাইলাইটার:

সঠিক হাইলাইটার প্রতিটি মেকআপ এ কিছুটা গ্ল্যাম এবং গ্লো যোগ করে। আপনি আরও ন্যাচারাল লুক বেছে নিচ্ছেন বা সাহসী এবং সুন্দর কিছু চান, হাইলাইটার আপনার মেকআপ অ্যাপ্লিকেশনের পরিপূরক হতে পারে।

স্টেপ ০৯ -: আইশ্যাডো:

আইশ্যাডো আপনার মেকআপ টিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে সাহায্য করবে। এটির শেড বেছেনিতে সাহসী হোন, দুটি রঙিন পরিপূরক কালার আপনার মেকআপ টিকে করে দিতে পারে অনেক বেশি সুন্দর এবং আকর্ষণীয়। 

স্টেপ ১০ -: আইলাইনার:

আইলাইনার প্রয়োগ করা কঠিন হতে পারে – একটি ছোট ভুল আপনার মেকআপ টি খারাপ করে দেবার জন্য যথেষ্ট। অনেক ধরণের আইলাইনার পাওয়া যায় যেমন লিকুইড আইলাইনার, জেল আইলাইনার, পেন্সিল আইলাইনার ইত্যাদি। আপনার সুবিধামতো আপনি আপনার আইলাইনার টি বেছে নিন।

স্টেপ ১১ -: মাসকারা:

আপনি যদি শুধুমাত্র একটি মেকআপ পণ্য ব্যবহার করতে চাচ্ছেন, মাস্কারা আপনার তালিকার শীর্ষে থাকা উচিত। মাস্কারার কয়েকটি সোয়াইপ আপনার চোখকে এক ধাপে উজ্জ্বল করে তুলতে পারে।আপনি বিভিন্ন রঙে মাসকারা খুঁজে পেতে পারেন, কিন্তু কালো এবং বাদামী সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়ে থাকে।আপনার চোঁখের পাপড়ি তে হালকাভাবে মাস্কারা ব্রাশটি ঘোরান। আরো ভলিউমের জন্য একটি দ্বিতীয় কোট প্রয়োগ করুন।

স্টেপ ১২ -: লিপস্টিক:

লিপস্টিক দেবার আগে, আপনার ঠোঁট প্রস্তুত করুন। যদি আপনার ঠোঁট ফেটে যায় তবে যে কোনও মৃত ত্বক অপসারণ করতে মৃদু ঠোঁটের স্ক্রাব ব্যবহার করতে ভুলবেন না। এর পরে, ঠোঁটকে আরও নরম করতে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এর পর আপনি আপনার পছন্দের লিপস্টিক টি প্রয়োগ করুন। 

স্টেপ ১৩ -: মেকআপ সেটিং স্প্রে:

মেকআপ সেটিং স্প্রে আপনার মেকআপ এর ফাইনাল পার্ট।যদি আপনি এমন মেকআপ চান যা সারাদিন ধরে থাকে, গ্রীসিং, ক্রীজিং বা চকচকে না করে, একটি মানসম্মত সেটিং স্প্রে ব্যবহার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার মেকআপ সম্পূর্ণ। এই মেকআপ অ্যাপ্লিকেশন টিপসের সাহায্যে, আপনি সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে নিয়ে পারেন অনেকগুন্।আপনারা এই সব মেকআপ কিনে নিতে পারেন Focallure Bangladesh by Easy Dhaka ওয়েবসাইট টি থেকে।যেকোনো বাজেট মেকআপ প্রোডাক্টস এর জন্য আমার রেকমেন্ডেশন হচ্ছে Focallure Bangladesh .